Home » ব্যক্তিত্ব » আন্তর্জাতিক শিশু শান্তি পুরস্কারের তালিকায় বরগুনার সাগর
শান্তি পুরস্কারের তালিকায় সাগর

আন্তর্জাতিক শিশু শান্তি পুরস্কারের তালিকায় বরগুনার সাগর

বরগুনা অনলাইন : আন্তর্জাতিক শিশু শান্তি পুরস্কার-২০ এর চূড়ান্ত তালিকায় স্থান পেয়েছে বাংলাদেশি শিশু এম. এ. মুনঈম সাগর। মুনঈম সাগর উপকূলীয় বরগুনা পৌরসভার কলেজ রোডের মুসলিম পাড়া এলাকার বাসিন্দা। তার বাবা শাহ্ মো. হুমায়ুন সগির এবং মা মনিরা বেগম উভয়ই সরকারি চাকরিজীবী।

মুনঈম বরগুনা জিলা স্কুল থেকে বিজ্ঞান বিভাগে এসএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে বর্তমানে ঢাকা রেসিডেনসিয়াল মডেল কলেজের বিজ্ঞান বিভাগের দ্বাদশ শ্রেণিতে অধ্যায়নরত আছেন।

তিনি জাতীয় সেরা সমাজকর্মী স্টুডেন্ট অ্যাওয়ার্ড এবং জাতীয় সেরা স্কাউট মোটিভেটর অ্যাওয়ার্ডসহ ইতিমধ্যে ১৫টি জাতীয় পুরস্কার পেয়েছেন। এছাড়াও জাপান সরকারের অধীনে পেয়েছেন একটি আন্তর্জাতিক পুরস্কার।

সমাজসেবা ও শিশু অধিকার নিশ্চিত করার যে আন্দোলন বিশ্বব্যাপী মুনঈম সাগর অব্যাহত রেখেছেন, তার সূচনা ঘটে নিজ পারিবারিক সমাজসেবামূলক প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ প্রতিবন্ধী উন্নয়ন সংস্থার (বিডিডিটি) মাধ্যমে। যার প্রতিষ্ঠাতা ও সিইও মুনঈম সাগরের নানা মো. মনিরুজ্জামান খান। পরবর্তীতে শিশু অধিকার নিশ্চিত করার লক্ষ্যে দেশব্যাপী বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনার জন্য মুনঈম সাগর টাইগার্স অব বাংলাদেশ (টিওবি) প্রতিষ্ঠা করেন।

আরো পড়ুন :  বরগুনার ছেলে দীপঙ্কর

মুনঈম সাগর

মুনঈম সাগরের বাবা শাহ্ মো. হুমায়ুন সগির বলেন, ছোটবেলা থেকেই মুন্ঈম মানুষের প্রতি বিনয়ী চিত্তে ভালোবাসা ও দরদ নিয়ে বড় হয়েছে। অসহায় শিশুদের দেখলে তাদের সাহায্য সহযোগিতার জন্য এগিয়ে যেত। শিশু অধিকার নিয়ে এখনো কাজ করে। তারই স্বীকৃতিস্বরূপ আন্তর্জাতিক শিশু শান্তি পুরস্কারের জন্য মনোনীত হয়েছে আমার ছেলে। সবাই দোয়া করবেন, মুনঈম যেন বিজয়ী হতে পারে।

প্রসঙ্গত, সামাজিক উন্নয়ন, সমাজের পরিবর্তন, শিশু অধিকার, দারিদ্রতা দূরীকরণ এবং ক্ষুধা নিবারণসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখার জন্য এ পুরস্কার প্রদান করবে নেদারল্যান্ডের কিডস্ রাইটস্ ফাউন্ডেশন নামের একটি সংস্থা। প্রাথমিকভাবে ১৮৬টি দেশের পাঁচ শতাধিক শিশু কিশোরকে এ পুরস্কারের জন্য মনোনীত করা হয়। এরপর পর্যায়ক্রমে বাছাই করে মনোনীত করা হয় ৮৬ জনকে।

আরো পড়ুন :  বরগুনার কৃতি সন্তান অব: কর্নেল আব্দুল খালেক আর নেই

সেখান থেকে চূড়ান্ত পর্যায়ে পুরস্কারের জন্য মনোনীত করা হয়েছে মুনঈমসহ মোট ৪২ জনকে। এখান থেকে একক কিংবা যৌথভাবে আগামী ১৩ নভেম্বর ঘোষণা করা হবে আন্তর্জাতিক শিশু শান্তি পুরস্কার। ইতিমধ্যে এ পুরস্কার ঘোষণার জন্য অনলাইনে ভোটগ্রহণ শুরু করেছে সংস্থাটি। তাই উপকূলের মুনঈম সাগরকে বিজয়ী করতে হলে দরকার একটি মূল্যবান ভোট।

এই হ্যাশট্যাক #ChildrensPeacePrize ও লিংক https://kidsrights.org/persons/munim সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যবহার করলে একটি করে ভোট যোগ হবে।

মুনঈম সাগর উপকূলবাসীর উদ্দেশে বলেন, পরিশ্রম আর সবার সহযোগিতা এবং ভালোবাসায় এতদূর এসেছি আমি। আপনাদের প্রার্থনা আর একটি করে ভোট এখন আমাকে চূড়ান্তভাবে মনোনীত করতে পারে। তাই একটি পোস্টের মাধ্যমে আমাকে ভোট দেয়ার জন্য সবাইকে অনুরোধ করছি।