Home » আমার বরগুনা » বরগুনা সদর » মাকে গালাগাল, ভিডিও ধারণ করায় কলেজছাত্রীকে পানিতে চুবিয়েছে প্রতিপক্ষ

মাকে গালাগাল, ভিডিও ধারণ করায় কলেজছাত্রীকে পানিতে চুবিয়েছে প্রতিপক্ষ

গোলাম কিবরিয়া, বরগুনা বার্তা সম্পাদক : বরগুনায় জমি নিয়ে বিরোধের জেরে শারমিন (২২) নামের এক কলেজছাত্রীকে পানিতে চুবিয়েছে প্রতিপক্ষ। গুরুতর অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে প্রথমে বরগুনা জেনারেল হাসপাতাল ও পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশালে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় শারীমনের মা রানী বেগমও আহত হয়েছেন। মঙ্গলবার বেলা সাড়ে এগারটার দিকে সদর উপজেলার বদরখালী ইউনিয়নে এ ঘটনা ঘটে।

শারমিন বদরখালী এলাকার এলাকার শাহ আলমের মেয়ে। তিনি শারমীন বরগুনা সরকারি কলেজে অধ্যয়নরত।

শারমিনের বাবা শাহ আলম জানান, সম্প্রতি তিনি ঘরের পেছনের শানুর একাংশ জমি কিনে নিয়েছেন। শানুর ভাই পনু মেকার ওই জমি ভোগদখলে বাঁধা দিলে বিরোধের সৃষ্টি হয়। বিষয়টি নিষ্পত্তির জন্য তিনি নিয়ে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদে আবেদন করেছেন।

আরো পড়ুন :  চাল চুরিকালে হাতেনাতে খাদ্যগুদাম কর্মকর্তাসহ আটক ৭

মঙ্গলবার ১১টার দিকে শারমিনের মা রানী বেগম ঘরের পেছনে কাজ করছিলেন। এসময় পনু ও তার ছেলে শহীদ সেখানে এসে বাঁধা দেয় গালাগাল করতে থাকে। মাকে গালিগালাজ করতে দেখে সেখানে আসে মোবাইল ফোনে ভিডিও ধারণ করতে থাকে। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে পনু ও শহীদ শারমিনের মা রানী বেগমকে মারধর করে ও গালাগাল করতে করতে তার দিকে তেড়ে আসে। দ্র্রুত ঘরে আশ্রয় নেয় শারমীন। কিন্তু শহীদ ঘরে প্রবেশ করে শারমিনকে টেনে হিচড়ে বের করে মুঠোফোনটি কেড়ে নেয়ার চেষ্টা করে।

এক পর্যায়ে ফোনটি পুকুরে ছুড়ে ফেলে সে। এতে আরো ক্ষিপ্ত হয় শহীদ ও তার বাবা পনু। শারমিনকেও ধাক্কা মেরে পুকুরে ফেলে চুবিয়ে আহত করে। এসময় ভাই সবুজের স্ত্রী খাদিজা বেগম শারমীনকে উদ্ধার করতে এগিয়ে এলে তার হাতেও কামড় বসিয়ে দেয় শহীদ।

আরো পড়ুন :  বরগুনা জেলা বিএনপির সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত

একপর্যায়ে প্রতিবেশীরা শারমিনকে উদ্ধার করে বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে আসে। কিন্ত অবস্থা গুরুতর দেখে তাকে উন্নত চিকিৎসার পরামর্শ দিয়ে সেখানকার চিকিৎসরা শারমিনকে বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠান।

এদিকে এ ঘটনার পর পনু ও শহীদও বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। জানতে চাইলে শারমিন ও তার মাকে মারধরের বিষয়টি উভয়েই অস্বীকার করে বলেন, ওরাই আমাদের মেরেছে তাই আমরাও হাসপাতালে ভর্তি হয়েছি।

বরগুনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তারিকুল ইসলাম বলেন, অভিযোগ পেলে পুলিশ আইনগত ব্যবস্থা নেবে।